ভুটানের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রথম Preferential trade agreement (PTA) চুক্তি’’
স্বাক্ষরিত হয়: ০৬ ডিসেম্বর, ২০২০
স্বাক্ষরিত স্থান: ফরেন সার্ভিস একাডেমি, ঢাকা (ভার্চ্যুয়াল সংযোগের মাধ্যমে)।
স্বাক্ষর করে: বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, বাংলাদেশ এবং ইকোনমিক অ্যাফেয়ার্স মিনিস্টার লোকনাথ শর্মা, ভুটান।
চুক্তির আওতায় ২ দেশের মধ্যকার শুল্কমুক্ত বাজারসুবিধা:
বাংলাদেশ ভুটানের বাজারে ১০০টি পণ্যে শুল্কমুক্ত বাজারসুবিধা পাবে।
ভুটান বাংলাদেশে ৩৪টি পণ্যে শুল্কমুক্ত বাজারসুবিধা পাবে।
++ বিশেষ তথ্য: (বাংলাদেশকে ভূটান স্বীকৃতি দেয়ার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে)
বাংলাদেশের তিনটি সমুদ্র বন্দর (চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা) ভুটানকে ব্যবহারের অনুমতি দেয় – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
আঞ্চলিক বিমানবন্দর ‘সৈয়দপুর বিমানবন্দর’, চিলমারি ও নারায়ণগঞ্জের পানগাওঁ বন্দর ভুটান ব্যবহার করতে পারবে।
#Remove_Confusion: ‘‘৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১ সালে ভুটান বাংলাদেশকে স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়’ – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুনরায় ভুটানের সেই ঐতিহাসিক মুহূর্তকে স্মরণ করে ধন্যবাদজ্ঞাপন করেন। নিমোক্ত লেখাটি পড়ে ফেলুন, বিষয়টি ক্লিয়ার হয়ে যাবে:
ওই দিনের ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার পিতাকে পাকিস্তানি আর্মিরা গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে গিয়েছিল। আটক থাকা অবস্থায় দুই ভাই কামাল ও জামাল পালিয়ে মুক্তিযুদ্ধে যায়। ওই সময়ে মা, বোন, ছোট ভাই রাসেল ও আমার তিন মাসের ছেলে সজিব ওয়াজেদ জয়সহ সবাই আটক অবস্থায় ছিলাম। যেদিন ভুটান স্বীকৃতি দিলো এবং আমরা যখন শুনতে পেলাম তখনকার অনুভূতি আমি প্রকাশ করতে পারবো না। আমরা খুশিতে হাসছিলাম, চিৎকার করছিলাম এবং কাঁদছিলাম এবং এই জন্য ভুটানকে ধন্যবাদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here